মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

০১.

পানীয়জলের চাহিদার ভিত্তিতে বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায়বরাদ্দকৃত নলকূপ সমূহের স্থান নির্বাচন করা হয়।ব্যক্তি পর্যায়েনা করে সেটা কমিউনিটি পর্যায়েকরা হয়। এলাকায়নলকূপের জন্য আবেদন এবং স্থানীয়সংসদ সদস্যের সুপারিশের ভিত্তিতে উপজেলা পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন কমিটি উক্তস্থান নির্বাচন করে থাকে। কমিউনিটির পক্ষে একজন উক্ত নলকূপের তত্ত্বাবধায়ক হবেন। সহায়ক চাঁদা হিসেবে ৪৫০০ (চার হাজার পাঁচশত) টাকার ব্যাংক ড্রাফ্‌টজমা করতে হবে।

০২.

জাতীয়স্যানিটেশন প্রকল্পের আওতায়প্রস্তুতকৃত স্যানিটারী রিং ও স্ল্যাব উপজেলা পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন কমিটি চাহিদার ভিত্তিতে দরিদ্র পরিবারের নিকট বিনামূল্যে বরাদ্দ প্রদানপূর্বক বিতরণ করে থাকে। বরাদ্দ প্রাপ্তরা নিজ খরচে উৎপাদন কেন্দ্র হতে নিজ বাড়িতে নিয়েউক্ত রিং ও স্ল্যাব যথাযথভাবে স্থাপন করবেন।

 

প্রাপ্ত সেবা সমূহঃ

১. পলস্নী এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদের সহায়তায় ও পৌর এলাকায় পৌরসভার সহিত নিরাপদ পানি সরবরাহ ওস্যানিটেশন কার্যক্রম গ্রহণ ও বাসত্মবায়ন।

২. পৌর এলাকায় পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থ্যার অবকাঠামো নির্মাণ ও কারিগরী সহায়তা প্রদান। পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণে দক্ষতা উন্নয়নের লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান ( ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা) সমূহকে কারিগরী সহায়তা প্রদান।

৩. মানব সম্পদ উন্নয়নের কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় দক্ষ জনবল গড়ে তোলা।

৪. সমগ্রদেশে খাবার পানির গুনগতমান পরীক্ষা, পরিবীক্ষন ও পর্যবেক্ষণ।

৫. নিরাপদ পানি ও স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানার ব্যবহার ও ইনভায়রনমেন্টাল স্যানিটেশন সংক্রামত্ম স্বাস্থ্যবিধি পালন সম্পর্কে জনগণকে উদ্বুদ্ধকরণ।

৬. আর্সেনিক আক্রামত্ম ও অন্যান্য সমস্যা সংকুল এলাকায় (লবণাক্ত, পাথুরে পাহাড়ি ইত্যাদি) নতুন লাগসই প্রযুক্তি উদ্ভাবনের মাধ্যমে নিরাপদ পানি সরবরাহ ব্যবস্থা গ্রহণ।

৭. আপদকালীন (বন্যা, সাইক্লোন ইত্যাদি) সময়ে জরুরী ভিত্তিতে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা করা।

৮. তথ্যকেন্দ্র স্থাপনের মাধ্যমে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন সেক্টরের তথ্য ব্যবস্থাপনা সমৃদ্ধি ও আধুনিকীকরণ।

৯. স্থানীয় সরকার, বেসরকারী উদ্যোক্তা, বেসরকারী সংস্থা এবং সিবিও সমূহকে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা উন্নয়নে কারিগরী পরামর্শ, তথ্য সরবরাহ ও প্রশিক্ষণ প্রদান।

১০. নিরাপদ খাবার পানি নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম গ্রহন এবং এজন্য পর্যায়ক্রমে দেশের সকল পানি সরবরাহ ব্যবস্থায় ওয়াটার সেফটি প্লান (ডঝচ) বাসত্মবায়ন।